ঢাকারবিবার , ২৬ জুন ২০২২
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. খেলা
  5. জাতীয়
  6. তথ্যপ্রযুক্তি
  7. ধর্ম
  8. ফিচার
  9. বিনোদন
  10. রাজনীতি
  11. লাইফস্টাইল
  12. শিক্ষাঙ্গন
  13. সারাদেশ
  14. স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মোংলায় ভুমিদস্যুর হাত থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসনের সাহায্য চেয়েছেন এক ভুক্তভোগি পরিবার

বিশেষ প্রতিনিধি
জুন ২৬, ২০২২ ৮:২২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বিশেষ প্রতিনিধি।।মোংলায় ভূমিদস্যু মোখলেছ ও মাসুদ বাহিনীর হাত থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসনের সাহায্য চেয়েছে এক ভুক্তভোগি পরিবার । দফায় দফায় দখলের চেষ্টা, মিথ্যা মামলা ও অভিযোগ দিয়ে, জাল দলিল সৃষ্টি করে উচ্ছেদের চেষ্টা করছে প্রায় ৫০ বছর ধরে বসবাসকারী জমির প্রকৃত মালিকদের ।

সরজমিনে জানা যায়, মোংলা থানার অন্তগর্ত ২২নং শেলাবুনিয়া মোজায় এস এ (চর-২) খতিয়ানে, ৭৫২ ও ৭৫৩ দাগে অটোল বিহারির অংশ থেকে ১৯৭০ সালে ১ দশমিক ২০ শতক জমি ক্রয় করে রেনুয়ারা ও রুবিয়ারা নামের দুই সহদোর বোন । পরবর্তী ১৯৭৫ সালের অটোল বিহারির ভাই কুন্ড বিহারির অংশ থেকে হাতবদল হয়ে একই দাগ (৭৫২/৭৫৩) ও খতিয়ানে অবশিষ্ট ০.৮৮ শতক জমি ক্রয় করেন মোংলায় বিশিষ্ট ব্যবসায়ী পিয়ার আহম্মেদ । পারিবারিক আত্মীয়তার সুবাধে পিয়ার আহম্মেদ, রেনুয়ারা ও রুবিয়ারা গং যৌথ ভাবে উক্ত সম্পত্তি প্রায় ৫০ বছর ধরে ভোগ দখল করে আসিতে ছিলো।

অসুস্থতার কারণে ব্যবসায়ী পিয়ার আহমেদ বেশ কয়েক বছর আগে মৃত্যুবরণ করে । এই সুযোগে উক্ত সম্পত্তি আত্মসাৎ করতে মরিয়া হয়ে ওঠে স্থানীয় প্রভাবশালী ভূমিদস্যু মোখলেসুর রহমান ও তার দলবল । চক্রান্ত্রের প্রথম ধাপে প্রভাবশালী মোকলেছ বাহিনী গত ০২/০৯/২০২০ সালে জাল পর্চা তৈরি করে মংলা সাব রেজিষ্ট্রি অফিস থেকে কৌশলে ওই সম্পত্তির একটি দলিল রেজিস্ট্রেশন করিয়ে নেয়। যার নং-১৩৪৬ । এই জাল দলিল সম্পর্কে গত ০৭/০২/২০২০ ইং তারিখে খুলনা থেকে প্রকাশিত দৈনিক পূর্বাঞ্চল পত্রিকায় একটি রিপোর্ট প্রকাশিত হয় । জমির প্রকৃত মালিকগন উক্ত জাল দলিলটি বাতিলের জন্য তৎক্ষনাৎ মোংলা সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে আবেদন করে । সহকারী কমিশনার (ভূমি) মংলা, বিষয়টি তদন্ত করে জাল পর্চার বিষয় সত্যতা পায় এবং আইনি পদক্ষেপ নেয়ার জন্য ভুক্তভোগীদের পরামর্শ দেন ।

এ দফায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে ভূমিদস্যু চক্রটির পরিকল্পনা ভেস্তে যায় । পরবর্তীতে কৌশলে পেয়ার আহমেদ গং এর এক শরিকের কিছুটা জমি যা দীর্ঘ দিন ধরে জনসাধারণের চলাচলের জন্য একটি রাস্তা হিসেবে ব্যবহৃত হতো (৩ কাটার একটু বেশি ) । সেই রাস্তাটি নিজের বড় ছেলের নামে রেজিষ্ট্রি করিয়ে নেয় সু-চতুর মোকলেছ।

আর এতেই কপাল খুলে উক্ত প্রভাবশালী মোখলেছ বাহিনীর । একই দাগের সম্পত্তি হওয়ায় এই দলিল টিকে পুজি করে দখলের চেষ্টা করছে,

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।