বাংলাদেশ-ভারতে যেভাবে ছড়িয়ে পড়ে খ্রিস্টান ধর্ম

Admin

ডিসেম্বর ২৫ ২০২১, ২০:২৫

মসলা আর ভারতীয় মসলিনের খোঁজে ইউরোপ থেকে ১৪৯৮ সালে ভারতে আসার পথ আবিষ্কার করেছিলেন পর্তুগিজ নাবিক ভাস্কো দা গামা। এরপর দলে দলে ইউরোপীয়রা এই উপমহাদেশে আসতে শুরু করে। তাদের সঙ্গে ভারতে আসে খ্রীস্ট ধর্মও।

সেই শুরুর দিকে ভারতের পশ্চিম উপকূলে গোয়ায় বসতি স্থাপন করেছিল ইউরোপীয়রা – আর সেখান থেকে তারা ছড়িয়ে পড়তে থাকে পুরো ভারতবর্ষ জুড়ে।

বাংলাদেশের চট্টগ্রাম অঞ্চলে পর্তুগিজরা পঞ্চদশ শতকে এলেও তখন তাদের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল ব্যবসা-বাণিজ্য এবং এসব ব্যবসায়ীরা ধর্ম বিস্তারের দিকে খুব একটা নজর দেয়নি। এই অঞ্চলে খ্রিষ্ট ধর্মের বিস্তার শুরু হয় মূলত মিশনারিদের হাত ধরে।

‘বাংলাদেশে খ্রিষ্টমণ্ডলীর ইতিহাস’ বইতে ফাদার মাইকেল ডি’রোজারিও লিখেছেন, ‘১৫০০ সাল থেকে বিভিন্ন যাজক সম্প্রদায়-ফ্রান্সিকান, ডমিনিকান, অগাস্টিনিয়ান প্রভৃতি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পর্তুগাল থেকে ভারতে এসে পর্তুগীজ শাসিত সমুদ্রোপকূলীয় জেলাগুলোতে গির্জা নির্মাণ করতে লাগলেন।’

তিনি লিখেছেন, ১৫১৭ সাল থেকেই পর্তুগীজরা নিয়মিতভাবে জলপথে বাংলা দেশে যাতায়াত শুরু করে। ১৫৩৭ সালে তারা চট্টগ্রাম এবং হুগলীর কাছে সাতগাঁয়ে উপনিবেশ স্থাপন করে। জুলিয়ানো পেরেরা নামের একজন ফাদার ছিলেন সাতগাঁয়ের (হুগলির কাছে) গির্জার দায়িত্বে।

বিডিখ্রীস্টিয়াননিউজ ডটকমের নির্বাহী সম্পাদক এলড্রিক বিশ্বাস বিবিসি বাংলাকে জানান যে ‘১৫৭৭ সালে মুঘল সম্রাট আকবর পর্তুগীজদের তৎকালীন বঙ্গদেশে স্থায়ী বসতি স্থাপন ও গির্জা নির্মাণের অনুমতি দেন।

‘পর্তুগীজ বসবাসকারীরাই হলেন বাংলার প্রথম খ্রিস্টান, দেশীয় খ্রিস্টানরা হলেন তাদের বংশধর। পরবর্তীতে খ্রিস্ট ধর্মবিশ্বাসের বিস্তার লাভের মাধ্যমে খ্রিস্টান জনগণের সংখ্যাও বৃদ্ধি পায়।’

ফাদার মাইকেল ডি‘রোজারিও তার গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন যে ১৫৭৬ সালে আন্তোনিও ভাজ এবং পেদ্রো দিয়াস নামক দুইজন ফাদার বাংলাদেশে বাস করতেন। কিন্তু তখনো নিয়মিত গির্জা নির্মাণ বা প্রচারণার তেমন কোনো ব্যবস্থা ছিল না।

‘১৫৯৮ সালে ফাদার ফ্রান্সিসকো এবং ফাদার দমিঙ্গো ডি’সুজা হুগলীতে পৌঁছেন। তার আগে ১৫৮০ সালে পর্তুগিজরা হুগলীতে বসতি স্থাপন করেছিল। তারা পৌঁছে সেখানে তৈরি হওয়া গির্জার দায়িত্ব নিয়ে একটি স্কুল ও হাসপাতাল নির্মাণ করেন। পরে ১৫৯৯ সালে মেলখিয়র দ্যা ফনসেকা ও আন্দ্রে বভেস নামের দুইজন ফাদার হুগলীতে আসেন এবং চারজনেই চট্টগ্রামে চলে যান।’

সেই সময় চট্টগ্রাম আরাকান রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত থাকলেও ওই এলাকা সত্যিকার অর্থে ছিল পর্তুগিজদের নিয়ন্ত্রণে। আরাকান রাজ খ্রিস্টান ধর্মপ্রচারকদের রাজ্যে ধর্ম প্রচারের অনুমতি দেন। এমনকি তিনি ব্যক্তিগত অর্থে চট্টগ্রামে একটি চ্যাপেলও তৈরি করে দেন।

হুগলী থেকে আসা চারজন ধর্মপ্রচারক তখনকার বঙ্গদেশের বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে যান।

যেমন ফাদার ফার্নান্দেজ চট্টগ্রামে একটি গির্জা ও বাসভবন তৈরি করেন। ফাদার মেলখিয়র বাখরগঞ্জ জেলার (বর্তমানের বরিশাল) বাকলা এলাকায় ধর্ম প্রচার করেন। বাখরগঞ্জের তখনকার হিন্দু রাজা তাদের ধর্মপ্রচার এবং গির্জা স্থাপনের অনুমতি দিয়েছিলেন। এরপর ফাদার ফনসেকা একটি গির্জা নির্মাণের কাজ শুরু করেন।

এলড্রিক বিশ্বাস বলছেন, বাংলাদেশের বর্তমান সাতক্ষীরা জেলার চান্দিকান বা ইশ্বরীপুরে ১৫৯৯ খ্রিস্টাব্দে প্রথম একটি ক্যাথলিক গির্জা নির্মিত হয়, যার নাম ছিল ‘হলি নেম অফ জিসাস।’ ১৬০০ খ্রিস্টাব্দের ২৪শে জুন দ্বিতীয় গির্জাটি নির্মিত হয় চট্টগ্রামে – যার নাম ‘সেইন্ট জন দ্যা ব্যাপ্টিস্ট চার্চ।’

আরাকান হামলা এবং বাধা

এক বছর পরেই, ১৬০১ সালে চট্টগ্রামে জন ব্যাপ্টিস্টের গির্জা নির্মাণ করেন ফাদার ফার্নান্দেজ এবং ফাদার বভেজ। কিন্তু পূর্বে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক থাকলেও সেই সময় পর্তুগিজদের শায়েস্তা করার জন্য আরাকানের রাজা চট্টগ্রামে হামলা করেন।

আরাকান সৈন্যদের হাতে ফাদার ফার্নান্দেজ বন্দী হন এবং কারাগারে মারা যান। ফাদার বভেজকেও বন্দী করা হয়। সেই সময় বাংলা অঞ্চলে কর্মরত সব যাজককে কর্তৃপক্ষ দেশে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দেয়।

তবে কয়েক বছর পরে আবার বাংলায় ফিরে আসতে শুরু করেন যাজকেরা। এবার অবশ্য তারা হুগলীতে বসতি স্থাপন করেন এবং সেখান থেকেই তারা ধর্মপ্রচার করতে শুরু করেন।

ঢাকায় খ্রিস্টান সম্প্রদায়

মাইকেল ডি‘রোজারিও তার বইতে উল্লেখ করেছেন, ১৬০৮ সালে ইসলাম খান ঢাকা শহরকে বাংলা প্রদেশের রাজধানীতে পরিণত করার পর এখানকার ব্যবসা-বাণিজ্য বেড়ে যায়। ১৬১২ সালে অগাস্টিনিয়ান খ্রিস্ট ধর্মপ্রচারকেরা ঢাকায় নারিন্দায় একটি গির্জা স্থাপন করে ধর্মপ্রচার শুরু করেন। পরবর্তীতে তারা ঢাকা জেলার শ্রীপুর, লরিকুল এবং কাত্রাবোতে আরো গির্জা তৈরি করেন। তারা ১৬২১ সালে চট্টগ্রামেও তাদের প্রচার কার্যক্রম শুরু হয়। আরাকানেও একটি চ্যাপেল তৈরি করেন তারা ।

‘১৬২১ থেকে ১৬৩২ সাল পর্যন্ত পর্তুগীজরা স্থানীয় মগ উপজাতীয়দের সঙ্গে মিলে ভয়াবহ লুটতরাজ করতে থাকে এবং বহু হিন্দু-মুসলমানকে বন্দী করে নিয়ে যায়। এর প্রতিশোধস্বরূপ পর্তুগীজদের হুগলীস্থ ঘাঁটি ধ্বংস করার জন্য ১৬৩২ সালে মুঘল সম্রাট বাংলার নবাবকে আদেশ দেন,‘লিখেছেন মাইকেল ডি‘রোজারিও।

‘বাংলাদেশে খ্রিষ্টমণ্ডলীর ইতিহাস’ বইয়ে তিনি উল্লেখ করেছেন, ‘নওয়াব কর্তৃক হুগলী শহর লুটপাট করার সময় অগাস্টিনিয়ানদের মঠাশ্রম, গির্জা, বাসভবন প্রভৃতি আগুনে ভস্মীভূত করা হয়। এই সময় কয়েকজন যাজক মারা যান। ঢাকাতেও মুসলমানরা মঠগুলোকে আক্রমণ করে।’ তবে ১৬৪০ সালের দিকে তৎকালীন সরকার ফাদারদের বিশেষ সুযোগ সুবিধা দান করে।

সেই সময় ঢাকার খ্রিস্টান সম্প্রদায় নারান্দিয়া এবং পুলগাড়িতে বাস করতো। তেজগাঁয়ের জপমালা রাণী মারিয়ার গির্জাটি ১৬৭৯ সালে নির্মাণ করা হয়। এটি ছিল তখন পূর্ব বাংলার প্রধান গির্জা। গাজীপুরের নাগরী ইউনিয়নে সেইন্ট নিকোলাস গির্জা নির্মিত হয় ১৬৯৫ সালে।

একই সময় ঢাকা, বাখরগঞ্জ, নোয়াখালী প্রভৃতি জেলায় পর্তুগীজদের ছোট ছোট উপনিবেশ ছিল। সেখানেও তারা আশেপাশের অনেক মানুষকে খ্রিস্ট ধর্মে দীক্ষিত করেন।

বাংলাদেশ অঞ্চলে খ্রিস্ট ধর্মের শুরুর দিক

মাইকেল ডি‘রোজারিও ১৬৮২ সালের একটি জরিপের তথ্য উল্লেখ করে লিখেছেন, সেই সময় বাংলা দেশে ২৭ হাজার বয়স্ক খ্রিস্টানের মধ্যে পূর্ব বাংলায় ছিল ৭,১২০ জন – ঢাকায় ২০০০, চান্দিপুর ২০০০, লরিকুল ২০০০, তেজগাঁও ৭০০, যশোর ৪০০ এবং ভূষণায় ২ জন।

তিনি উল্লেখ করেন, ভূষণার (বর্তমান ফরিদপুর) রাজপুত্র খ্রিস্টধর্ম গ্রহণ করার ফলে তার এলাকার হাজার হাজার মানুষ এই ধর্মে দীক্ষিত হতে শুরু করেন। তার পূর্বের নাম জানা যায় না, তবে খ্রিস্টধর্ম গ্রহণ করার পর তিনি দোম আন্তোনিও নাম গ্রহণ করেছিলেন।

নওয়াব হুগলী আক্রমণ করার পর পশ্চিমবঙ্গে পর্তুগীজদের প্রভাব হ্রাস পেতে থাকে। তবে পূর্ববঙ্গে তাদের আধিপত্য বজায় ছিল। কিন্তু ১৬৬৮ সালে শায়েস্তা খাঁ চট্টগ্রাম দখল করার পর তাদের প্রভাব সম্পূর্ণ বিলুপ্ত হয়। তাদের স্থানে জায়গা করে নেয় ইউরোপীয় অন্যান্য দেশের যাজকরা। সেই সময় ঢাকার বাইরে ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম, খুলনায় ধর্মপ্রচার করতে শুরু করেন খ্রিস্টান যাজকরা।

‘বাংলাদেশে খ্রিষ্টমণ্ডলীর ইতিহাস’ বইয়ে ফাদার মাইকেল ডি’রোজারিও লিখেছেন, ফাদার বার্বিয়ার ১৭১৫ সালে বাংলাদেশের খ্রিস্টানদের সম্পর্কে যে রিপোর্ট দিয়েছিলেন, সেখানে তিনি উল্লেখ করেছেন, বাংলাদেশে তিন ধরনের খ্রিস্টান ছিল:

(১)ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ইউরোপীয়রা

(২) ভাড়াটে সৈন্য (মুঘলদের অধীনে কর্মরত সৈন্য – মূলত পর্তুগীজ ও ভারতীয় বংশোদ্ভূত)

(৩) খ্রিস্টধর্মে দীক্ষা-প্রাপ্ত (ধর্মান্তরিত) অবিশ্বাসীগণ

মুঘল আমলে মুসলমানদের প্রকাশ্যে খ্রিস্টধর্মে দীক্ষিত করতে পারতো না যাজকরা। কারণ বাদশাহের অনুমতি ছাড়া তারা যেমন ধর্ম পরিবর্তন করতে যেত না, তেমনি সেটা করলে যাজকদেরও বিপদে পড়তে হতো।

ফলে অনেকেই গোপনে খ্রিস্টধর্ম গ্রহণ করতেন। এদেরকে ‘গুপ্ত খ্রিষ্টান’ বলে বাংলাদেশে খ্রিষ্টমণ্ডলীর ইতিহাস বইতে উল্লেখ করা হয়েছে।

উইলিয়াম কেরি এবং ভারতে খ্রিস্ট ধর্ম

এলড্রিক বিশ্বাস বলেন, বাংলা দেশে খ্রিস্টধর্ম প্রচারে যার অবদান সবচেয়ে বেশি, তিনি হলেন ড. উইলিয়াম কেরি। তিনি কলকাতায় আসেন ১৭৯৩ সালে। সেখানে তিনি অবৈতনিক পাঠশালা খোলেন এবং দু’টি কলেজ স্থাপন করনে। ১৮০৯ সালে তিনি বাইবেলের পুরাতন ও নতুন নিয়ম বাংলায় অনুবাদ করে মুদ্রণ করেন।

এতদিন যারা ধর্মপ্রচারক করেছেন, তারা সবাই ছিলেন ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের। তবে উইলিয়াম কেরি ছিলেন প্রটেস্ট্যান্ট।

ড. কেরি দিনাজপুরে বাংলাদেশের প্রথম ব্যাপ্টিস্ট গির্জা স্থাপন করেন ১৭৯৬ সালে।

বিদেশি যাজকদের বাইরে বাংলাদেশের যেসব ব্যক্তিরা খ্রিস্টধর্ম প্রচারে বিশেষ ভূমিকা রেখেছিলেন, তাদের মধ্যে ভূষণের রাজপুত্র দোম আন্তোনিওর মতো আরো রয়েছেন বিক্রমপুরের শিবনাথ দত্ত চৌধুরীর ছেলে গগন চন্দ্র দত্ত, গোপালগঞ্জের মথুরানাথ বোস প্রমুখ।

‘বাংলাদেশে খ্রিষ্টীয় মণ্ডলীর ইতিহাস’ বইতে অধ্যাপক দিলীপ পণ্ডিত উল্লেখ করেছেন যে আঠারো শতকের দিকে সারা বাংলায় ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেন খ্রিস্টান ধর্মপ্রচারকরা। বিশেষ করে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীগুলোর অনেক সদস্য খ্রিস্ট ধর্ম গ্রহণ করেন তখন।

ময়মনসিংহ, রাজশাহী, খুলনা, দিনাজপুর, রংপুর, কুষ্টিয়া, নওগাঁ, নাটোর, সিলেট এবং পার্বত্য জেলাগুলোর নানা অংশে যাজকরা ছড়িয়ে পড়েন।

এসব এলাকায় গির্জা তৈরির পাশাপাশি অনেক স্কুল-কলেজ তৈরি করা হয়, ফলে সেখানকার সুবিধাবঞ্চিত ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সদস্যরা আধুনিক শিক্ষা পেতে শুরু করেন।

এর পাশাপাশি তাদের জন্য চিকিৎসা ও কাজের সুযোগ তৈরি করা হয়। ফলে এসব ছোট ছোট জনগোষ্ঠীর সদস্যদের অনেকেই খ্রিস্টধর্ম গ্রহণ করেন।-বিবিসি বাংলা