যখন থেকে নায়ক-পরিচালকের বন্ধুত্ব

Admin

সেপ্টেম্বর ২৯ ২০২১, ১৩:১৭

অভিনয় ক্যারিয়ারে যত খ্যাতি কুড়িয়েছেন, তার সমস্ত কৃতিত্ব সৃজিত মুখার্জিকে দিলেন ওপার বাংলার নন্দিত অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়।

অন্যদিকে, সৃজিতের আসন্ন সিনেমার সমস্ত সাফল্যের কৃতিত্ব নিজের নামে নিলেন প্রসেনজিৎ। ইনস্টাগ্রামে আনন্দ-উচ্ছ্বাসে এই ঘোষণা করলেন অভিনেতা।

হঠাৎ এই প্রসঙ্গ টানলেন কেন প্রসেনজিৎ? ভনিতা না করে উত্তরটা দিয়েই দেওয়া যাক। মজার ছলেই এই ঘোষণা করেছেন প্রসেনজিৎ। সঙ্গে শেয়ার করেছেন একটি মিম। যা তার আগে ফেসবুকে শেয়ার করেছিলেন পরিচালক সৃজিত।

ছবিতে দেখা যাচ্ছে, প্রসেনজিতের মাথার চুল কেটে দিচ্ছেন একজন মহিলা। আর অভিনেতার এই লুককে সৃজিতের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে।

পরে একই ছবি শেয়ার করে ঠাট্টার ছলে প্রসেনজিৎ লেখেন, একদম তাই-ই! সিনেমার জগতে অর্জন করা আমার যাবতীয় কৃতিত্ব সৃজিতকে দিয়ে দিলাম। আর সৃজিতের আসন্ন সমস্ত সিনেমার পরিচালনার কৃতিত্ব আমার নামে নিয়ে নিলাম।

‘অটোগ্রাফ’ সিনেমার মাধ্যমে পরিচালক হিসেবে টলিউডে যাত্রা শুরু করেছিলেন সৃজিত। সেই ছবির নায়ক ছিলেন প্রসেনজিৎ। ২০১০ সালে মুক্তি পেয়েছিল সিনেমাটি। সেই থেকে নায়ক-পরিচালকের বন্ধুত্ব।

পরবর্তীকালে ‘বাইশে শ্রাবণ’, ‘জুলফিকার’র মতো সিনেমা উপহার দিয়েছে এই জুটি। ‘কাকাবাবু’ হিসেবে বড় পর্দায় প্রসেনজিৎকে এনেছেন সৃজিত।

আপাতত, মুক্তির অপেক্ষায় ‘কাকাবাবুর প্রত্যাবর্তন’। করোনা পরিস্থিতি যখন শুরু হয়েছিল, তখন দক্ষিণ আফ্রিকায় গিয়ে সিনেমার শুটিং করা হয়।

এরপর, কলকাতায় ফিরে ৭ থেকে ১০ দিন স্বেচ্ছায় গৃহবন্দি থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন সৃজিত ও প্রসেনজিৎ। সুরক্ষার খাতিরেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তারা।

তবে সিনেমার বাইরেও সুযোগ পেলেই নিজেদের বন্ধুত্বকে সেলিব্রেট করেন সৃজিত-প্রসেনজিৎ। সেটারই ইঙ্গিত পাওয়া গেল প্রসেনজিতের নতুন এই পোস্টে।