আফগানিস্তানকে সতর্ক করলেন এরদোয়ান

Admin

সেপ্টেম্বর ২৭ ২০২১, ১৪:৩২

আফগানিস্তানে একটি সত্যিকার অন্তর্ভুক্তি সরকার গঠিত না হলে দেশটির সঙ্গে কোনো বাণিজ্যিক চুক্তিতে যাবে না তুরস্ক। দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোয়ান এ বিষয়ে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করেছেন।

সম্প্রতি তুরস্ককে কাবুলের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর পরিচালনার প্রস্তাব দিয়েছে আফগানিস্তানে ক্ষমতাসীন তালেবান সরকার।

রোববার মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিবিএসের একটি সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠানে তুর এরদোয়ানকে প্রশ্ন করা হয়, তালেবান সরকারের এই প্রস্তাব তুরস্ক গ্রহণ করবে কিনা।

উত্তরে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আফগানিস্তানের বর্তমান সরকার অন্তর্ভুক্তিমূলক নয়। যতদিন পর্যন্ত সব অংশ ও শ্রেনীর প্রতিনিধিত্ব করে- এমন একটি সরকার দেশটিতে প্রতিষ্ঠিত না হচ্ছে, আফগানিস্তানের সঙ্গে কোনো প্রকার চুক্তিতে যেতে তুরস্ক প্রস্তুত নয়।’

‘তবে দেশটির বর্তমান সরকার যদি সত্যিকার অর্থেই নিজেদেরকে একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকারে রূপান্তরের উদ্যোগ নেয়, সেক্ষেত্রে তুরস্ক অবশ্যই আফগানিস্তানের সঙ্গে বাণিজ্যিক চুক্তিতে যাবে।’

আফগানিস্তানের সরকার, প্রশাসন, অর্থনীতি, শিক্ষাসহ সবক্ষেত্রে নারীদের অধিকমাত্রায় অংশগ্রহণ তুরস্ক দেখতে চায় উল্লেখ করে সাক্ষাৎকারে এরদোয়ান বলেন, ‘আমরা আশা করছি, আফগানিস্তানের জীবনযাত্রার সব ক্ষেত্রে নারীদের অংশগ্রহণ থাকবে এবং সেটি হতে হবে সন্তোষনজনক পর্যায়ের; এবং যখন দেশটির বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীদের অংশগ্রহণে কোনো বাধা থাকবে না- আমরা তাদের (তালেবান) সমর্থন করব।’

সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধের অংশ হিসেবে ২০০১ সালে যখন আফগানিস্তানে অভিযান শুরু করেছিল যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো, সেই অভিযানের অংশ নিয়েছিল তুরস্কও। তালেবান বাহিনী আফগানিস্তানে ক্ষমতাসীন হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্র ও অন্যান্য ইউরোপীয় দেশসমূহের মতো তুরস্কও দূতাবাস কর্মী ও নিজ দেশের নাগরিকদের আফগানিস্তান থেকে প্রত্যাহার করেছে।

আফগানিস্তানে প্রত্যাহার কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর হুড়োহুড়ি, বিশৃঙ্খলা ও বোমা হামলায় বিমানবন্দরের বিভিন্ন অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। কাতার ও তুরস্কের সহায়তায় সেসব অংশের মেরামত কাজ শেষ হয়েছে।

সেই সূত্র ধরেই তুরস্ককে বিমানবন্দর পরিচালনার প্রস্তাব দিয়েছিল তালেবান, যার জবাব এরদোয়ান দিলেন রোববার।